Communication Information of Tourism or Parjatan Place of Rangamati | Bangla Printing View

Important Tourism Information of Bangladesh

Tourism or Parjatan Communication Information of Rangamati District, Bangladesh
by md. abidur rahman | parjatanbd | A Home of Tourism
Information Created and Managed By :  Hrittyi Chowdhury  | হৃত্বি চৌধুরী

Beautiful Rangamati  | Description | Bangla  | English | Spanish | Tourism Information |   Union Weblink | Communication | Famous Local Food

Linik of Communication Information

Barisal | Chittagong  | Dhaka | Khulna | Mymensing 
Rangpur | Rajshahi | Sylhet

Bangla | English

 
বাংলাদেশের রাঙ্গামাটি জেলার ভ্রমণ স্থানের যোগাযোগের বর্ণনার লিংক এখানে দেয়া আছে। ভ্রমণকারী ভ্রমণ স্থানে ভ্রমণ করতে ইচ্ছে পোষণ করলে এখান থেকে তথ্য নিয়ে ভ্রমণ করতে পারবে। এর ফলে রওনার পৃর্বেই তারা সে স্থানের যাতায়াত সম্পর্কে অবগত ও সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারবে। তথ্যই সঠিক সিদ্ধান্ত নেয়ার মূল সহায়ক।

 

  ভ্রমণ স্থানের নাম ভ্রমণ স্থানে যাওয়ার বর্ণনা বা কিভাবে যাবেন
পুলিশ স্পেশাল ট্রেনিং স্কুলেট
চট্রগ্রাম রাঙ্গামাটি মহাসড়কের সাথে ১নং বেতবুনিয়া মডেল ইউনিয়নে পাহাড়ীকা সিনেমা হলের ১০০ গজ সামনের যানবাহন থেকে নামা মাত্রই পুলিশ স্পেশাল ট্রেনিং স্কুলে।।
কর্ণফুলী পেপার মিলস্ লিমিটেড
রাঙ্গামাটি থেকে জল ও স্থল উভয় পথেই কাপ্তাই যাওয়া যায় (সময় লাগে ১ থেকে ২ ঘন্টা)। বাস, মাইক্রো, অটোরিক্মা, ইঞ্জিনচালিত বোটযোগে যাওয়া যায়। চট্টগ্রাম বহদ্দারহাট হতে বাস/মাইক্রোযোগে কাপ্তাই/চন্দ্রঘোনা যাওয়া যাবে। সেক্ষেত্রে চন্দ্রঘোনা পেপার মিল ১নং গেটে যেতে হবে।
শ্রদ্ধেয় বনভান্তের জন্ম স্থান মোরঘোনায় স্মৃতি স্তম্ভ ও স্মৃতি মন্দির(নির্মাণাধীণ)।
রাঙ্গামাটি শহর থেকে রাঙ্গামাটি-আসামবস্তী -কাপ্তাই সড়কে বড়াদম পর্যন্ত যে কোন যানবাহনে যাওয়া যাবে।
রাঙ্গামাটি-কাপ্তাই সংযোগ সড়ক
রাঙ্গামাটি থেকে কাপ্তাই যাওয়ার নতুন সড়ক। অটোরিক্মা, মাইক্রো দিয়ে যাওয়ার সময় এ সড়কের চারপাশের দৃশ্য উপভোগ করা য়াবে। চট্টগ্রাম থেকে ভাড়া গাড়িতে করে এ সড়ক দিয়ে রাঙ্গামাটি আসা যাবে।
যমচুক
রাংগামাটি জেলা সদর থেকে দেশীয় ইঞ্জিন বোটে খারিক্ষ্যং, ত্রিপুরাছড়া ও মাচ্চ্যাপাড়া হয়ে প্রায় ৪ ঘন্টা পায়ে হেটে যমচুক এলাকা যাওয়া যাবে। যমচুগ এলাকাটি হতে পুরো বন্দুক ভাংগা এলাকায় অবলোকন করা যাবে।
ফুরমোন পাহাড়
শহর থেকে অটোরিক্মা কিংবা মটরগাড়িযোগে পাহাড়ের পাদস্থলে যাওয়া যাবে। পরে পায়ে হেঁটে পাহাড়ে উঠতে হবে।
টুকটুক ইকো ভিলেজ
রাঙামাটি শহর থেকে টুক টুক ইকো ভিলেজে যাওয়ার জন্য শহরের রিজার্ভ বাজারের শহীদ মিনার এলাকা হতে  নিজস্ব বোটের ব্যবস্থা।
জেলা প্রশাসকের বাংলো
শহরের যে কোন স্থান হতে অটোরিক্মা বা নৌপথে রাঙ্গামাটি ডিসি বাংলোতে যাওয়া যাবে।
পেদা টিং টিং
রাঙ্গামাটির রিজার্ভ বাজার, পর্যটন ঘাট ও রাংগামাটি বিভিন্ন স্থান থেকে স্পীড বোট ও নৌ-যানে করে সহজেই যাওয়া যাবে।
উপজাতীয় টেক্মটাইল মার্কেট
শহরের যে কোন স্থান হতে সহজেই এখানে যাওয়া যাবে। অটোরিক্মা বা অন্য যানের মাধ্যমে যাতায়াত জন্য ব্যবহার হতে পারে।
কাপ্তাই জাতীয় উদ্যান
রাঙ্গামাটি থেকে জল বা স্থল উভয় পথেই কাপ্তাই যাওয়া যাবে (সময় লাগে ১ থেকে ২ ঘন্টা) বাস, মাইক্রো, অটোরিক্মা, ইঞ্চিনচালিত বোটযোগে যাওয়া যাবে। চট্টগ্রাম বহদ্দারহাট হতেও বাস, মাইক্রো বাসে কাপ্তাই যাওয়া যাবে। কাপ্তাই নতুন বাজার যাওয়ার আগে কাপ্তাই জাতীয় উদ্যান গেটে নামতে হবে।
ঐতিহ্যবাহী চাকমা রাজার রাজবাড়ি
অটোরিক্মা কিংবা প্রাইভেট গাড়িযোগে কে.কে.রায় সড়ক হয়ে হ্রদের এই পাশে যেতে হবে। এরপর নৌকাযোগে হ্রদ পার হয়ে রাজবাড়িতে যাওয়া যাবে। কাপ্তাই হ্রদের মাধ্যমে নৌপথেও এ স্থানে আসা যাবে।
উপজাতীয় যাদুঘর
যাদুঘরটি সকলের জন্য উম্মুক্ত থাকে।
রাজবন বিহার
টিটিসি রোড দিয়ে কিংবা রাঙ্গামাটি জিমনেসিয়াম এর পাশের রাস্তা দিয়ে অটোরিক্মা অথবা প্রাইভেট গাড়ি বা অন্য কোন মটরযানে রাজবন বিহারে যাওয়া যাবে। নৌপথে বিভিন্ন বোটযোগেও এখানে আসা যায়।
ঝুলন্ত ব্রিজ
রাঙ্গামাটি শহরের তবলছড়ি হয়ে সড়ক পথে সরাসরি পর্যটন কমপ্লেক্সে যাওয়া যাবে। এখানে গাড়ি পার্কিং-এর ব্যবস্থা রয়েছে। যারা ঢাকা বা চট্টগ্রাম থেকে সার্ভিস বাসে করে আসবেন তাদের তবলছড়িতে নেমে অটোরিক্সা রিজার্ভ করে যেতে পারবেন।
বীরশ্রেষ্ঠ ল্যান্সেনায়েক মুন্সী আব্দুর রউফ স্মৃতি ভাস্কর্য
রাংগামাটি চট্টগ্রাম সড়ক সংলগ্ন সাপছড়ি স্থান অবস্থিত। সদর উপজেলা থেকে আটো রিক্সা এবং চট্টগ্রামগামী বিভিন্ন যানের মাধ্যমে উক্ত স্থানে যাওয়া যায়। এখানে বিভিন্ন পর্যটক শীতকালীন সমযে ভীড় জমায়।
কাপ্তাই লেক
নৌ-ভ্রমণের জন্য রিজার্ভ বাজার, তবলছড়ি ও পর্যটন ঘাটে ভাড়ায় স্পীড বোট ও নৌযান পাওয়া যায়।
রাইংখ্যং পুকুর
ঢাকা থেকে শ্যামলী, মডার্ণ ও এস.আলম বাসে করে কাপ্তাই, কাপ্তাই জেটিঘাটস্থ লঞ্চঘাট থেকে ইঞ্জিনবোটে করে বিলাইছড়ি,  বন্দরনগরী চট্টগ্রাম থেকে ৩/৪ ঘন্টার মধ্যে বিলাইছড়ি আসা যাবে। আবার চট্টগ্রাম থেকে বিলাইছড়ি আসলে বহদ্দারহাট বাস টার্মিনাল থেকে প্রথমে কাপ্তাই জেটিঘাটে, এরপর প্রতিদিন সাড়ে ৭ টায় রাঙ্গামাটির তবলছড়ি ঘাট থেকে ইঞ্চিনবোট যাত্রী নিয়ে সকাল ১০ টার মধ্যে বিলাইছড়ি যাওয়া যাবে, ওই বোটটি আবার বিলাইছড়ি থেকে দুপুর ২ টার মধ্যে রাঙ্গামাটির উদ্দেশ্যে ছাড়ে। এটি বিলাইছড়ি উপজেলার অন্তর্গত হলেও বিলাইছড়ি-ফারুয়া হয়ে এখানে যোগাযোগ করা অত্যন্ত কষ্টকর। কেউ চাইলেও পায়ে হাঁটার বিকল্প নেই। বিলাইছড়ি থেকে বড়থলি যেতে প্রায় ৭ দিন সময় লাগে। তাই এখানকার লোকজন বান্দরবান জেলার রুমা উপজেলা দিয়ে এখানে আসা-যাওয়া করে থাকে।
কাপ্তাই পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের স্পিলওয়ে
চট্টগ্রাম বদ্দারহাট হতে বাসে কাপ্তাই যেতে হবে। কাপ্তাই বিপিডিবি রিসিভসন গেইটে অনুমতি নিয়ে স্পিলওয়ে দেখতে যেতে হবে।
রাঙ্গামাটি ফুড প্রোডাক্টস
১নং বেতবুনিয়া মডেল ইউনিয়ন পরিষদের ৩নং ওয়ার্ড ডাকবাংলো, চট্টগ্রাম রাঙ্গামাটি মহাসড়কের সাথেই রাঙ্গামাটি ফুড প্রোডাক্টস অবস্থিত। গাড়ী থেকে নেমেই মাত্র ১০ গজ সামনে।
 

 

 

 

Welcome